অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার নিয়ম ২০২৩ইং

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম কাটার নিয়ম
শেয়ার করুন সবার সাথে

ট্রেনের টিকিট কেনা-বেচার সেবাটি অনলাইনেও চালু করার ফলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা  লাইনে অপেক্ষা করার সমস্যাটা এখন অনেক কমে গেছে। 

কারণ বাংলাদেশ রেলওয়ে  ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রয়  করছে। সেবাটি চালু হওয়ায় এখন অনলাইনে টিকিট ক্রয়ের প্রতি মানুষ বেশি আগ্রহী হচ্ছে।  

তবে অনেকেই কিন্তু জানেন না যে কীভাবে অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম  টিকিট কাটতে হয়। আবার টিকিট কাটার  পূর্বের নিয়ম ও সময়ও যে পরিবর্তিত হয়েছে সেটাও জানেন না। অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার নিয়ম ২০২৩ ইং নিয়ে লেখা আজকের আর্টিকেলটি তাদের জন্যই।

এক নজরে আর্টিকেলের শিরোনামসমূহ

ট্রেনের টিকিট সম্পর্কিত সর্বশেষ আপডেট

বাংলাদেশ রেলওয়ে অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির কাজটি শুরু করে ২০১২ সালে। ই-টিকিট https://eticket.railway.gov.bd নামের এই সাইটটি অনলাইনে ট্রেনের টিকিট বিক্রির কাজ করছে।তবে বর্তমানে ই-কমার্স সাইট  সহজ ডট কম বাংলাদেশ রেলওয়েকে এ ব্যাপারে সাহায্য করছে। 

টিকিট কালোবাজারির হাত থেকে রেল সেবাকে বাঁচাতে বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে  নতুন কিছু নিয়ম চালু করেছে। তা হলো যাত্রীকে টিকিট কেনার সময় প্রমাণস্বরূপ তার এনআইডি/জন্মনিবন্ধন  দেখাতে হবে । ১৮ বছরের বেশি যাত্রীদের জন্য এনআইডি কার্ড লাগবে আর ১৮ বছরের কম বয়সী যাত্রীদের জন্মনিবন্ধন সনদ হলেই হবে। 

এছাড়া একজন যাত্রী সর্বোচ্চ ৪ টি টিকিট কিনতে পারবেন। আর যিনি ক্রয় করবেন তাকে অবশ্যই ট্রেনে  ভ্রমণ করতে হবে। নতুবা সব টিকিট বাতিল হয়ে যাবে। আর টিকিট ফেরত দিলে অনলাইনে সহজেই রিফান্ডও পেয়ে যাবেন। ট্রেনের টিকিট কাটার এই নিয়ম অনলাইন অফলাইন দুই ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য। 

কারা টিকিট কিনতে পারবেন?

বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনের অগ্রিম টিকিট যেকোন বাংলাদেশি নাগরিকই কিনতে পারবেন। অবশ্য বিদেশি নাগরিকও তার উপযুক্ত পরিচয় প্রদান করে টিকিট কিনতে পারবেন।

একজন ব্যাক্তি সর্বোচ্চ কতগুলো টিকিট কাটতে পারবেন?

বাংলাদেশ রেলওয়ের নতুন নিয়ম অনুযায়ী একজন ব্যাক্তি সর্বোচ্চ ৪ টি টিকিট ক্রয় করতে পারবে।আর যিনি টিকিট কিনবেন তাকেও ট্রেনে ভ্রমণ করতে হবে। 

টিকিট কেনার আগে কি কি তথ্য লাগবে?

টিকিট কাটতে হলে আগের মতো যে কেউ লাইনে দাঁড়ালেই টিকিট পাবেন না। নতুন নিয়মে অনলাইন/অফলাইনে টিকিট কাটার জন্য এনআইডি/জন্মনিবন্ধনের সনদের কপি জমা দিয়ে রেলওয়ে একাউন্ট খুলতে হবে। মোবাইল নম্বরও দিতে হবে।

অবশ্য অফলাইনে মোবাইল দিয়েও এই একাউন্ট খোলা যায়। মোবাইলের  মেসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করুন BR<space>NID নম্বর <space> জন্ম তারিখ (জন্ম তারিখের ফরম্যাট-জন্মের সাল/মাস/দিন)। এই এসএমএস টি পাঠিয়ে দিন ২৬৯৬৯ নম্বরে। এরপর ফিরতি এসএমএসের মাধ্যমে নিবন্ধন হয়েছে কি না তা জানানো হবে।

বিদেশি নাগরিকগণ তাদের পাসপোর্টের কপি জমা দিয়ে রেল একাউন্ট খুলে টিকিট কাটতে পারবেন। 

কাউন্টার থেকে টিকিট কিনতে হলে কি করতে হবে?

কাউন্টার থেকে টিকিট কিনতে চাইলেও আপনার রেলওয়ে একাউন্ট খুলতে হবে। এই একাউন্ট নম্বর ব্যবহার করে কাউন্টার থেকে টিকিট কেনা যাবে।

স্ট্যান্ডিং টিকিট পেতে হলে কি করতে হবে? 

স্ট্যান্ডিং টিকিট কিনতে হলে  এনআইডি/জন্মনিবন্ধন সনদ দিয়ে ভেরিফিকেশন করা লাগবে না। কাউন্টারে গিয়ে স্ট্যান্ডিং টিকিট চেয়ে মূল্য পরিশোধ করলেই কর্তৃপক্ষ টিকিট দিয়ে দেবে। 

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার নিয়ম ২০২৩ ইং

ধাপ ১: রেলের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন

নতুন নিয়ম অনুযায়ী অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ক্রয় করতে হলে কিছু ধাপ সম্পন্ন করতে হবে। ১ম ধাপে রয়েছে  বাংলাদেশ রেলওয়ের https://eticket.railway.gov.bd  ওয়েবসাইটে রেজিষ্ট্রেশন করা। যেকোনো ব্রাউজার থেকে এই সাইটে প্রবেশ করুন। নিচের ইমেজের মতো হোমপেজ দেখতে পাবেন।

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার নিয়ম

 

ধাপ ২: এনআইডি নম্বর, মোবাইল নম্বর ও জন্মতারিখ দিয়ে ভেরিফাই করুন

হোমপেজ থেকে Register ট্যাবে গিয়ে একাউন্ট খোলার অপশন পাবেন। এরপর ইংরেজিতে মোবাইল নম্বর,এনআইডি নম্বর,জন্ম তারিখ দিন। কারণ বাংলায় এই সাইটে তথ্য গৃহিত হয়না। এখন VERIFY বাটনে ক্লিক করতে হবে।

Rail NID Verification

নোট: যাদের বয়স ১৮ এর কম তারা একাউন্ট খুলতে চাইলে জন্মনিবন্ধন সনদের নম্বর বা যারা বিদেশি তারা পাসপোর্টের নম্বর দিয়ে একাউন্ট খুলতে পারবেন। সেক্ষেত্রে VERIFY বাটনের নিচে SUBMIT DATA বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৩: মোবাইল ভেরিফাই করুন

আপনার এনআইডি কার্ডের তথ্য ঠিক থাকলে VERIFY বাটনে ক্লিক করার পর আপনাকে নতুন একটি পেজে নিয়ে যাওয়া হবে। এখানে আপনার ইমেইল আইডি,পোস্ট কোড এবং ঠিকানা দিতে হবে। এ সময় নতুন একটি পাসওয়ার্ড সেট করতে হবে, যা দিয়ে পরবর্তিতে রেলের একাউন্টে ঢুকতে হবে। এটি খুবই প্রয়োজনীয়। তাই এটি মনে রাখুন বা কোথাও লিখে রাখুন।

ইমেইল এড্রেস, ঠিকানা ও পাসওয়ার্ড দিন
সঠিকভাবে ইমেইল এড্রেস, ঠিকানা ও পাসওয়ার্ড দিন

তারপর COMPLETE REGISTRATION  বাটনে ক্লিক করুন। এখন আপনার মোবাইলে ৬ সংখ্যার একটি Verification Code আসবে। ২ মিনিটের মধ্যে এই কোডটি দিয়ে Continue বাটনে সাবমিট করলে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করা হয়ে যাবে।

এখন একাউন্টে লগইন করা থাকবে এবং Disclaimer এর শর্তাবলি পড়ে নিচের I Agree বাটনে চাপ দিন। 

নোট: এনআইডি কার্ড নিবন্ধিত হয়েছে কিন্তু হাতে পাননি এরকম ক্ষেত্রে অনলাইন থেকে এনআইডি কার্ড ডাউনলোড করে কাজ চালাতে পারেন।

লগইন করা পেজ থেকে লগআউট হয়ে গেলে চিন্তার কোনো কারন নেই। আবার রেলওয়ে ওয়েবসাইটের LOGIN  পেজে গিয়ে আপনার মোবাইল নম্বর ও পাসওয়ার্ড দিয়ে পুনরায় লগইন করতে পারবেন। এখন কিন্তু এই পেজের ডানদিকে আপনার নাম লেখা থাকবে।

ধাপ ৪: ট্রেন সার্চ করুন

লগইন করে ওয়েবসাইটের Home পেজে যান। যেই ইন্টারফেস আসবে সেখানে আপনি কোন স্টেশন থেকে কোন স্টেশনে নামতে চান,আপনার গন্তব্যের তারিখ ও সীটের ক্লাস নির্বাচন করতে পারবেন। 

যাত্রার শুরু, গন্তব্যের স্থান, যাত্রার তারিখ ও আসনের ধরন দিন

এজন্য প্রথমে ‘From’ লেখা ঘরে আপনার গন্তব্য শুরুর স্টেশনের নাম এবং পরে ‘To’ লেখা ঘরে গন্তব্য শেষে নামবেন কোথায় সেই স্টেশনের নাম দিন। এরপর  ‘Date of Journey’ ঘরে কোনদিন যাত্রা শুরু করবেন সেই তারিখ এবং ‘Choose Class’ ঘরে কোন শ্রেণির সীট নিতে চান তা উল্লেখ করে Search Trains বাটনে ক্লিক করুন। 

এক্ষেত্রে একটা বিষয় হলো এই ৪ টা ঘরের তথ্য অনুযায়ী যদি সীট না পান তাহলে ঘরের তথ্য পরিবর্তন করে সীট খুঁজে নিতে পারবেন। যেমন যেই তারিখে যেতে চান সেই তারিখে যদি দেখেন যে ভালো সীট নেই তখন তারিখ পরিবর্তন করতে পারবেন। আবার গন্তব্য শুরুর ও শেষের স্টেশনও পাল্টাতে পারবেন। আপনার যাত্রার তারিখ অনুযায়ী সীট না পেলে সীটের ক্লাসও পরিবর্তন করতে পারবেন।

ধাপ ৫: ট্রেন ও সীট বাছাই করুন

উপরের নির্দেশনা অনুসারে ট্রেন সার্চ করার পর আপনার দেওয়া তথ্যের সাথে মিল আছে এমন ট্রেনের তালিকা দেখানো হবে। ট্রেন ছাড়ার সময়, কাঙ্ক্ষিত স্টেশনে পৌঁছানোর সময় , এতে কতক্ষণ সময় লাগবে, আরও কি কি ধরণের সীট বিক্রি করার জন্য খালি আছে সেই তথ্যও পাওয়া যাবে ‘Train Details’ নামক অপশনে ক্লিক করার মাধ্যমে । 

এখন এসব তথ্য থেকে পছন্দমতো সীটের উপরে ‘BOOK NOW’ বাটনে ক্লিক করুন।

এই পর্যায়ে আপনি একটি পেজ দেখতে পাবেন যেখান থেকে  ট্রেনের বগি নির্ধারণ করতে পারবেন। ‘SELECT COACH’ নামক অপশনে ক্লিক করলে ট্রেনের বগি বা কোচের তালিকা আসবে। পাশাপাশি বোর্ডিং স্টেশনও ঠিক করা যাবে।

SELECT COACH’ অপশনে ক্লিক করার পর সীটের বা কোচের যে তালিকা এসেছিলো সেখানে তিনটি ভিন্ন রঙের সীটের অপশন পাবেন।এসব রঙের আলাদা অর্থ আছে।

যেমন সাদা রঙ করা সীট খালি আছে অর্থাৎ তা বুকিং করা যাবে। গেরুয়া বা কমলা রঙের সীট বুক করা হয়েছে।আর নীল রঙের সীট আপনি নির্ধারণ করেছেন।এবার ডানদিকের ‘Continue Purchase’ বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৬: যাত্রীর তথ্য দিন

ট্রেনে যদি আপনার জন্য একটি সীট বুকিং করেন তাহলে আর তেমন তথ্য দিতে হবে না। কিন্তু আপনি যদি আরও সীট বুকিং দিয়ে থাকেন তবে আপনার সাথের যাত্রীদের তথ্যও আপনাকে দিতে হবে। ট্রেনে ভ্রমণের শর্ত হলো ৩ থেকে ১২ বছরের সবাই শিশু বলে গণ্য এবং তাদের ভাড়া কম।আর ৩ বছরের নিচের শিশুদের জন্য টিকিট কাটার দরকার নেই। 

ধাপ ৭: টিকিটের মূল্য পরিশোধ করুন

উপরের ধাপ সম্পন্ন হলে টিকিটের মূল্য পরিশোধ করার অপশন আসবে। ভ্যাট,ব্যাংক, সার্ভিস চার্জসহ টিকিটের মোট মূল্য কত তা দেখানো হবে।এজন্য মোবাইল ব্যাংকিং  বা ডেবিট/ ক্রেডিট কার্ড অপশন বাছাই করুন।তারপর CONFIRM PURCHASE এ ক্লিক করলে মূল্য পরিশোধ হয়ে যাবে। 

ধাপ ৮: ট্রেনের টিকিট ডাউনলোড ও প্রিন্ট করুন

টিকিটের মূল্য পরিশোধ করার পর টিকিট কনফার্মেশন পেজ আসবে।এখানে ট্রেনের নাম,সীট নম্বর, ক্লাস,PNR নম্বর  থাকবে।নিচে থাকবে Print your ticket now বাটন।এটিতে ক্লিক করে টিকিট প্রিন্ট করা যাবে। এছাড়া Purchase History থেকে টিকিটটি ডাউনলোড করেও রাখা যাবে।

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার সময়

২৪ ঘণ্টাই অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার সময় আছে। তবে টিকিট কাটতে হলে ভ্রমণের নূন্যতম ৪ দিন আগে  টিকিট কাটতে হয়। অনলাইনে আজকের দিন ও আগামী ৪ দিনসহ মোট ৫ দিন সময় পাবেন টিকিট কাটার জন্য।

বিকাশের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

বিকাশ অ্যাপের মাধ্যমে ট্রেনের টিকিট কাটার উপায় আছে। তবে সেটা কিছুটা পুরনো ও  এখনো আপডেট হয়নি। 

প্রথমে বিকাশ অ্যাপ ওপেন করে লগইন করুন।এরপর মেইন মেনু থেকে টিকিট অপশন সিলেক্ট করুন ।এখানে বাস,লঞ্চ,মুভি,বিমান ও ট্রেনের টিকিটসহ বিভিন্ন ধরনের অপশন দেখা যাবে। 

তারপর  ট্রেন সিলেক্ট করে বাংলাদেশ রেলওয়ে অপশনে ক্লিক করুন। এরপর এর ওয়েবসাইটে ইমেইল ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন।

স্ক্রিনে গন্তব্য  স্থান, গন্তব্য তারিখ, টিকিটের সংখ্যা প্রভৃতি দিয়ে ট্রেন সিলেক্ট  করুন।যদি চাহিদামতো সিট খালি থাকে তাহলে Purchase অপশনে যেতে হবে ।

এখানে রেলওয়ে একাউন্টের ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিতে হবে। এরপর সেখানে বিকাশের ইন্টারফেস আসবে। এই ইন্টারফেসে আপনার বিকাশ নম্বর দিলে একটি ভেরিফিকেশন কোড পাওয়া যাবে।এরপর বিকাশ পিন দিয়ে টিকিট কিনতে পারবেন। 

 

 


শেয়ার করুন সবার সাথে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!