বালাপুরের জমিদার বাড়ি

বালাপুর জমিদার বাড়ি
শেয়ার করুন সবার সাথে

বালাপুরের জমিদার বাড়ি ভ্রমণ পরিকল্পনা

সন্ধ্যা নামলেই জমিদার বাড়িতে সন্ধাপূজা হতো। বিশালবাড়ি জুড়ে তখন ধুঁপের গন্ধে পরিপূর্ণ । সংস্কৃতমনা জমিদার পরিবারে প্রতি সন্ধ্যায় আড়ম্বরপূর্নভাবে বাজানো হতো ঢোলসহ বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র । সাথে বসতো যাত্রাপালা, নাটক সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আসর।  জমিদার বাড়িটির নাম বালাপুরের জমিদার বাড়ি ( Balapur Jomidar bari ) । নরসিংদীর বালাপুর গ্রামে অবস্থিত এটি।

১৯৪৭ সালে বাংলা  তখন দুইভাগ হয়ে গেলো। বহু হিন্দু পরিবার বাধ্য হয়েছিলো পূর্ব বাংলা ত্যাগ করতে। ঠিক তেমনি বালাপুরের জমিদার বাড়ির লোকজনকেও ছাড়তে হয়েছিলো এই দেশ। যাওয়ার সময় তারা জমিজমা সহ বাড়িটি মন্দিরের নামে উইল করে দিয়ে যায়।বাড়িটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন জমিদার নবীনচন্দ্র সাহা। কিন্তু কার নামে বাড়িটির নামকরণ করা হয়েছে তা জানা যায়নি।

৩২০বিঘা  জমির উপর তৈরী বাড়িতে একটি একতলা ভবন, দুইটি দুই তলা ভবন এবং একটি তিন তলা ভবন রয়েছে। সেখানে ৩১ কক্ষ বিশিষ্ট একটি দালান শুধুমাত্র অতিথীদের জন্য তৈরী। বাড়িটিতে  কক্ষ রয়েছে মোট ১০৩ টি। বাড়িটির প্রতিটি কক্ষ মোজাইক করা এবং দরজাগুলো  ফুলপাতার নকশা করা। বাড়িটির পশ্চিম দিকে একটি বিশাল বড় গেট আছে।

তাছাড়া পাশেই রয়েছে ৯২ শতক জমি জুড়ে একটি পুকুর, শানবাঁধানো ঘাট, মন্দির এবং জমিদারী দূর্গামন্ডপ।



আরো রয়েছে ১০০ বছরের পুরানো বালাপুর নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়। এই ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৩ সালে।

প্রায় শতবছর আগে একা হয়ে যাওয়া বাড়িটি এখন পরিত্যাক্ত। লতাপাতায় ঢেকে গেছে। আপনি যদি বর্তমান যান্ত্রিক জীবনে বিরক্ত হয়ে পরেন, তবে কিছু সময়ের জন্য চলে যেতে পারেন বালাপুরের জমিদার বাড়িতে । তাহলে কিছুটা সময় কাটবে মনোমুগ্ধকর প্রাচীন ঐতিহ্যর কাছে।

জমিদার বাড়িটির ভিডিও দেখুনঃ বালাপুর জমিদার বাড়ি

যাবেন কিভাবে

বালাপুরের জমিদার বাড়িটি নরসিংদীর পাইকারচর ইউনিয়নে অবস্থিত। যা ঢাকা শহর থেকে খুব কাছে। একদিনেই ঢাকা থেকে গিয়ে জমিদার বাড়িটি ঘুরে আসা সম্ভব।

ঢাকা থেকে কিভাবে আসবেন 

ঢাকা থেকে গন্তব্য স্থানে যেতে  প্রথমে আপনি গুলিস্থানের সার্জেন্ট আহাদ পুলিশ বক্সের সামনে থেকে নরসিংদীর মাধবদী যাবেন মেঘালয় বা লোকাল  বাসে করে।



মেঘালয় বাসে ভাড়া পরবে জনপ্রতি ৯০ টাকা। আর লোকাল বাসে ৩০-৪০ টাকা করে ভাড়া নিবে। এরপর মাধবদী বাস স্ট্যান্ড থেকে রিকশা ভাড়া করে জমিদার বাড়ি চলে যেতে পারেন। সিএনজিতে যেতে চাইলে মাধবদী বাস স্ট্যান্ড থেকে প্রথমে রিকশা নিয়ে চলে যাবেন গরুরহাট সিএনজি স্টেশন। সেখান থেকে জনপ্রতি ২০/৩০ টাকা ভাড়ায় সিএনজি আপনাকে নবীন চন্দ্র উচ বিদ্যালয়ের সামনে নামিয়ে দিবে। এরপর সামান্য হাঁটলেই সামনে পেয়ে যাবেন কাঙ্খিত  জমিদার বাড়িটি।

চট্টগ্রাম থেকে যেভাবে যাবেন

চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি  নরসিংদী যাওয়ার সড়কপথে তেমন ভালো ব্যবস্থা নেই। তাই প্রথমে  এস. আলম, সৌদিয়া, গ্রিন লাইন, সোহাগ ইত্যাদি ঢাকাগামী বাস দিয়ে কাঁচপুর আসবেন। ভাড়া পরবে ৪৫০-৫০০ টাকা। এরপর কাঁচপুর থেকে ঢাকা সিলেট রোড হয়ে বাসে নরসিংদীর মাধবদী যাবেন। এরপর রিকশা নিয়ে গরুরহাট বাস স্ট্যান্ড। সেখান থেকে সিএনজি বা রিকশায় করে বালাপুর জমিদার বাড়ি। তাছাড়া ইচ্ছে  করলে রেলপথে মহানগর এক্সপ্রেস,কর্ণফুলী,চট্টলা এক্সপ্রেস এবং মেইল ট্রেন দিয়ে নরসিংদী যাওয়া যায় সরাসরি চট্টগ্রাম থেকে। এরপর রেল স্টেশন থেকে লোকাল বাস বা সিএনজি করে মাধবদী গিয়ে সেখান থেকে বালাপুর জমিদার বাড়ি।

সিলেট  থেকে যেভাবে যাবেন

সিলেট থেকে যেতে হলে প্রথমে সিলেটের কদমতলী থেকে নরসিংদীগামী যেকোনো বাসে করে মাধবদী বাস স্ট্যান্ডে আসবেন। ভাড়া পড়বে ১০০-১৫০ টাকা। তারপর রিকশা নিয়ে গরুরহাট সিএনজি স্ট্যান্ড হয়ে লোকাল সিএনজি করে ২০-৩০টাকা ভাড়ায় বালাপুর জমিদার বাড়ি।

থাকবেন কোথায় 

বালাপুর জমিদার বাড়ি মূলত একদিনের ভ্রমণ স্থান। যদি অতিরিক্ত প্রয়োজনে আশেপাশে রাত কাটাতে হয় তবে চলে যেতে হবে মাধবদী। সেখানে কোনো আবাসিক হোটেলে থাকতে হবে। কয়েকটি  আবাসিক হোটেলের নাম ও যোগাযোগের নম্বর উল্লেখ করে দিচ্ছি যেখানে ৪০০-১০০০ টাকার মধ্যে রুম পাবেন। হোটেল সৈকত বডিং,হোটেল ওয়েস্টিন ইন্টারন্যাশনাল আবাসিক(01718-174382)। এছাড়া হেরিটেজ রিসোর্ট নামে একটি  রিসোর্টও রয়েছে মাধবদীতে। 01755-677149 হেরিটেজ রিসোর্টে যোগাযোগের নম্বর।

খাবেন কোথায়

খাবারের ব্যাপারে আপনাকে মাধবদীতেই খাবারের ব্যবস্থা করতে হবে। এইখানে কিছু খাবারের হোটেল রয়েছে যেখানে আপনি মোটামুটি স্বল্পমূল্যে মাছ, মাংস অথবা বিরিয়ানি দিয়ে খাবারের বন্দোবস্ত করতে পারবেন।

কাছাকাছি অন্যান্য দর্শনীয় স্থান

  • লক্ষণ সাহার জমিদার বাড়ি
  • ড্রিম হলিডে পার্ক 
  • গিরিশ চন্দ্র সেনের বাড়ি
  • মেঘনা নদীর পাড়
  • আটকান্দি মসজিদ
  • পারুলিয়া মসজিদ
  • সোনাইমুড়ি টেক
  • আটকান্দি মসজিদ
  • উয়ারী বটেশ্বর
  • বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান জাদুঘর
  • শাহ ইরানী মাজার
  • দেওয়ান শরীফ মসজিদ
  • আশ্রাবপুর মসজিদ
  • বেলাব বাজার জামে মসজিদ

শেয়ার করুন সবার সাথে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!