সাফারি পার্ক

Bangabandhu Sheikh Mujib Safari Park
শেয়ার করুন সবার সাথে

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক

বাসায় ছোটো বাচ্চা থাকলে সকলেই চায় বাচ্চাটি শিক্ষণীয় পরিবেশে বেড়ে উঠুক এবং সমস্ত পৃথিবী সম্পর্কে জানুক। এমনকি বড়রা নিজেরাও চায় পৃথিবীর সকল রহস্য সম্পর্কে  জানতে। কখনো কখনো ভাবনায় আসে ইশ যদি ন্যাশনাল জিওগ্রাফি কিংবা ডিস্কভারির চ্যানেলের লোকগুলোর মতো আফ্রিকার জঙ্গল বা আমাজন মহাবনে ঘুরে বেড়াতে পারতাম। সেটাতো আর সম্ভব হয়না তবে আপনি ইচ্ছে করলেই দেশে থেকে সেসকল সাধ নিতে পারেন বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে। রাজধানী ঢাকা থেকে মাত্র ৪৭ কিলোমিটার দূরে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলায় অবস্থিত এই সাফারি পার্ক। থাইল্যান্ডের সাফারি ওয়ার্ল্ডের আদলে তিন হাজার  ৮১০ একর ভূমির উপর তৈরী  বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে রয়েছে দেশ বিদেশের বিভিন্ন জাতের  বন্যপ্রাণী। এই সাফারি পার্কটিকে ৫টি অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়েছে। সেগুলো হলো:

বঙ্গবন্ধু স্কয়ার

মূলত এখানে পার্কের অফিসিয়াল কাজগুলো  পরিচালনা করা হয়। এখানেই পার্কের সকল তথ্য পাবেন। তাছাড়া এখানে একটি নেচার হিস্ট্রি মিউজিয়ামও রয়েছে।  ইকো  রিসোর্ট,লেক,ফোয়ারা এখানেই অবস্থিত।



কোর সাফারি পার্ক

কোর সাফারি পার্কের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো এখানে মানুষ থাকে বন্দী, প্রাণিকুল  থাকে স্বাধীন। পার্ক কতৃপক্ষ অনুমোদিত বিশেষ জিপে করে আপনাকে ঘুরে দেখতে হবে সমস্ত পার্ক। গাড়ির কাচ দিয়ে আপনি স্পষ্ট দেখতে পাবেন বাঘ, সিংহ, ভাল্লুক সহ ভয়ানক জন্তুরা ঘুরে  বেড়াচ্ছে নিশ্চিন্তে।

সাফারি কিংডম

এখানে অবশ্য পর্যটকরা নিজ পায়ে  হেঁটে পার্কটি দেখতে পারবে। রয়েছে পাখিশালাও, যেখানে আপনি পাবেন বিভিন্ন  প্রজাতির পাখির সন্ধান। আর মেরিন অ্যাকুরিয়ামে রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির  মাছ।

বায়োডাইভারসিটি পার্ক

এই জায়গায় পাবেন পৃথিবীর বিভিন্ন বিরল প্রজাতির গাছ। যা ৯৬৫ একর জায়গার উপর তৈরী করা হয়েছে।

এক্সটেনসিভ এশিয়ান সাফারি পার্ক

এখানে দেখা পাবেন এশিয়া মহাদেশের বিভিন্ন জাতের প্রাণীদের । যেখানে তৃণভোজী,মাংসাশী এবং পাখি ,সরীসৃপ উভয়  রয়েছে।

সাফারি পার্কের যাওয়ার উপায়

ঢাকা থেকে

ঢাকা থেকে গাজীপুর যেতে হলে আপনাকে  আজিমপুর কিংবা  গুলিস্তান থেকে  শ্রীপুর,ময়মনসিংহ  অথবা ভালুকাগামী বাসে উঠে ৫০-৮০  টাকা  ভাড়ায় বাঘের বাজার নামতে হবে। তাছাড়া গাজীপুর চৌরাস্তায় নেমে হিউম্যান হলার করেও বাঘের বাজার যেতে পারেন। বাঘের বাজার থেকে ২০-৫০ টাকা ভাড়ায় রিকশা বা অটোরিকশা করে যেতে হবে সাফারি পার্ক।



সিলেট থেকে সাফারি পার্ক

এক্ষেত্রে এনা,সৌদিয়া ইত্যাদি বাসে করে গাজীপুর চলে যেতে পারেন ভাড়া পরবে ৪৮০-৫০০ টাকা। বাস গুলো সম্পর্কে আরো জানতে  +8801919654746, +8801941714714,+8801676198456 নম্বর গুলোতে যোগাযোগ করে নিতে পারেন। এরপর বাঘের বাজার হয়ে রিকশা,অটো রিকশায় সাফারি পার্ক। রেল পথে যেতে চাইলে এসি,নন এসি ২৫০-১০০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়ায়  পারাবত এক্সপ্রেস,জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস, উপবন  এক্সপ্রেস,কালনী  এক্সপ্রেস করে ঢাকা বিমান বন্দর স্টেশন নেমে বিআরটিসি বাসে করে গাজীপুর হয়ে হিউম্যান হলারে বাঘের বাজার থেকে  রিকশা বা অটোরিকশায় সাফারি পার্ক যেতে পারেন।

চট্টগ্রাম থেকে যেভাবে যাবেন

চট্টগ্রামের সাথে সব জেলারই যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো। আপনি চট্টগ্রাম থেকে বাসে করে সাফারি পার্ক যেতে চাইলে এনা বা সৌদিয়ায়  নন এসি ৫০০ এবং এসি ৭৫০ টাকা ভাড়া করে গাজীপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত যেতে পারেন। ০১৯৫৮১৩৫১৫৮ নম্বরে এনা পরিবহনের সাথে যোগাযোগ করে নিতে পারেন।



এছাড়া ২৫০-১২০০ টাকা ভাড়ায় তূর্ণা নিশিথা,  মহানগর গোধূলী, মহানগর প্রভাতী, সুবর্ণ এক্সপ্রেস,  মেইল ট্রেনে করে ঢাকা বিমান বন্দর নেমে বিআরটিসি বাস করে প্রথমে গাজীপুর বাঘের বাজার এরপর রিকশা,অটোরিকশায় সাফারি পার্ক।

ইচ্ছে করলে নিজেদের ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়েও যেতে  পারেন। সে ক্ষেত্রে গুনতে হবে পার্কিং ভাড়া। বাস কিংবা বড় গাড়ি ২০০টাকা,মিনিবাস এবং মাইক্রোবাস ১০০টাকা,ছোট গাড়ি বা অটোরিকশা ৬০ টাকা পার্কিং ভাড়া।

থাকবেন কোথায়

সাফারি পার্কে একদিনেই ঘুরে বেড়ানো সম্ভব তবুও যদি রাতে থাকতে চান তবে সাফারি পার্কে একটি বিশ্রামাগার রয়েছে যেখানে কাটাতে পারেন রাত। 01973000044, 01823000044, 01823004484 নম্বর গুলোতে যোগাযোগ করে প্রি বুকিং করে নিতে পারেন। এছাড়া ডাক বাংলো,সদর জেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ইত্যাদি সরকারি জায়গায় থাকতে চাইলে ৯২৫২৮৭৫ এবং ৯২৫২৫০১নম্বরে  ফোন করে বুকিং করতে পারেন। আল মদিনা আবাসিক(০১৭২৮৬৮৪৫৩৭) , হোটেল জলি(৯৮০১৭৪৫), হোটেল চ্যানেল ইন্টা(৯৮০০৪৭২) ইত্যাদি হোটেলে ২০০-৩০০টাকার মধ্যে রুম পাবেন। 

খাবেন কোথায়

সাফারি পার্কে ইচ্ছে করলে পিকনিকের আয়োজন করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে আগে থেকেই পিকনিক স্পষ্ট বুক করে নিতে হবে 01973000044, 01823000044, 01823004484 নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করে। তাছাড়া ক্যাফেটেরিয়াও রয়েছে সাফারি পার্কে এবং রয়েছে বাঘ রেস্টুরেন্ট এবং সিংহ রেস্টুরেন্ট নামে ২টি রেস্টুরেন্ট।  যেখানে বসে খেতে খেতে অনুভব করতে পারেন সাফারি পার্কের সৌন্দর্য।



সাফারি পার্কে প্রবেশ ও অন্যান্য খরচ

সাফারি পার্কে বাংলাদেশিরা ৫০ টাকা করে প্রবেশ করতে পারবেন। বয়স যদি ১৮ এর  নিচে হয় তবে প্রবেশ মূল্য ২০ টাকা। আর ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা সফরের ক্ষেত্রে জনপ্রতি প্রবেশ ১০ টাকা করে।  কিন্তু বিদেশিদের ক্ষেত্রে প্রবেশ মূল্য আলাদা তাদের দিতে হবে ৫ ডলার করে।

সাফারি পার্কে প্রবেশ করার পর বিভিন্ন স্থানে যেতে আলাদা করে টিকেট কাটতে হয়। যেমন ধরুন কোর সাফারি পার্কে পশু উন্মুক্ত থাকে তাই সেখানে যেতে হবে পার্ক কর্তৃপক্ষর  দেয়া গাড়ি দিয়ে। এক্ষেত্রে প্রাপ্তবয়স্করা ১০০ টাকা এবং শিশু,ছাত্রছাত্রীরা ৫০ টাকা করে টিকেট কাটতে হবে।  কোর সাফারি পার্ক ছাড়াও অন্য স্থানগুলোতে যেতেও লাগবে টিকেট। যার দাম ১০-১০০টাকার মধ্যেই।

পার্ক খোলা বন্ধের সময়

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক খোলার সময় হলো সকাল ৯টা এবং বিকেল ৫টায় পার্ক বন্ধ হয়ে যায়। সকাল সকাল চলে এলে সারাদিন পার্ক ঘুরে দেখতে পারবেন। প্রতি সপ্তাহে মঙ্গলবার পার্ক বন্ধ থাকে।

গাজীপুরে অন্যান্য দর্শনীয় স্থান সমূহ

  • ভাওয়াল জাতীয় উদ্যান
  • নুহাস চলচ্চিত্র ও পর্যটন কেন্দ্র
  • হায়দ্রাবাদ দীঘি
  • ভাওয়াল কলেজ দীঘি
  • রাহাপাড়া দীঘি
  • রাজবিলাসী দীঘি
  • বিল বেলাই
  • জাগ্রত চৌরঙ্গী
  • ছয়দানা দীঘি ও যুদ্ধক্ষেত্র    গাছা
  • ১৯ শে স্মারক ভাস্কর্য
  • মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কর্ণার
  • রাজবাড়ী শ্বশান
  • ভাওয়াল রাজবাড়ী
  • কাশিমপুর জমিদার বাড়ী

শেয়ার করুন সবার সাথে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!