জিন্দা পার্ক

Zinda Park
শেয়ার করুন সবার সাথে

জিন্দা পার্ক

শহুরে জীবনের যান্ত্রিকতা থেকে দূরে সবুজ প্রকৃতির মাঝে কিছুটা সময় কাটাতে কার না ভালো লাগে? তবে হাজার ব্যস্ততার মাঝে প্রকৃতির সান্নিধ্য লাভে দূরে কোথাও ভ্রমণে যাওয়া প্রায়শই সম্ভব হয়ে ওঠে না। এরূপ পরিস্থিতিতে একটি স্বাচ্ছন্দ্যময় ভ্রমণের জন্য বেঁছে নিতে পারেন ঢাকার অদূরে অবস্থিত জিন্দাপার্ককে( Zinda Park)। তবে এটিকে শহরের সাধারণ পার্কগুলোর মত ভেবে ভুল করে বসবেন না। আদতে এই পার্কটি অনেকটাই আলাদা। জিন্দাপার্ক মূলত কোন সরকারি কিংবা বানিজ্যিক প্রকল্প নয় বরং উক্ত এলাকায় বসবাসকারী মানুষের দীর্ঘদিনের প্রয়াসের ফল। প্রায় ১৫০ একর আয়তনের সবুজে আচ্ছাদিত এই পার্কটিতে সময় কাটাতে যে কারো ভালো লাগবে। তো আর দেরি না করে চলুন যেনে নেওয়া যাক জিন্দাপার্কে ভ্রমণসম্পর্কিত যাবতীয় তথ্যাবলী।

জিন্দাপার্ক এর অবস্থান

জিন্দাপার্ক নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নে অবস্থিত। ঢাকা থেকে এর দূরত্ব প্রায় ৩৬ কিলোমিটার।

কীভাবে যাবেন

রাজধানী ঢাকা থেকে বেশ কয়েকটি উপায়ে জিন্দাপার্ক যাওয়া যায়। একটি রাস্তা হলো কুড়িল বিশ্বরোড থেকে ৩০০ ফিট পূর্বাচল হাইওয়ে হয়ে যাওয়া সুবিধাজনক হওয়ার কারণে অধিকাংশ মানুষ এই রুটটিকেই বেঁছে নেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে কুড়িল ট্রেন লাইন এর পাশে অবস্থিত বিআরটিসি কাউন্টার থেকে কাঞ্চনব্রিজের টিকেট কেটে বাসে উঠতে হবে।



বাসের টিকেটমূল্য ২৫ টাকা, ব্রিজ পর্যন্ত যেতে সময় লাগবে প্রায় ৩০ মিনিট। এরপর কাঞ্চন ব্রিজ থেকে অটোরিক্সায় করে বাকিটা পথ পারি দিতে হবে। অটোরিক্সায় জনপ্রতি ভাড়া পড়বে ২৫ থেকে ৩০ টাকা এবং রিজার্ভ করতে চাইলে গুনতে হবে ১২০টাকা। ব্রিজ থেকে জিন্দাপার্কের উদ্দেশ্যে যাত্রার স্থায়িত্ব ২০ মিনিটের কাছাকাছি। ৩০০ ফিট থেকে অটোরিক্সা কিংবা সিএনজি রিজার্ভ করে একই রুটে সরাসরি জিন্দাপার্কে যাওয়া সম্ভব। সেক্ষেত্রে ভাড়া লাগবে ২৫০ থেকে ৩০০টাকা।

এর পাশাপাশি ঢাকা থেকে ভুলতা হয়ে বাইপাস সড়ক ধরে জিন্দাপার্ক যাওয়া যায়।

এছাড়া টঙ্গী মিরের বাজার থেকে বাইপাস সড়ক দিয়েও জিন্দাপার্ক যাওয়া সম্ভব।

ফেরার সময় পার্ক থেকে কাঞ্চনব্রিজ এলেই সেখান দিয়ে কুড়িল যাওয়ার বিভিন্ন যান পেয়ে যাবেন।

পার্কে প্রবেশমূল্য

ছুটির দিন ব্যতীত অন্যান্য দিনে পার্কটিতে প্রবেশমূল্য ১০০টাকা। তবে ছুটির দিনগুলোতে পার্কে প্রবেশমূল্য ১৫০টাকা। ৫ বছরের কম বয়সী বাচ্চাদের জন্য প্রবেশমূল্য ৫০টাকা। খেলার সামগ্রী কিংবা বাদ্যযন্ত্র নিয়ে পার্কটিতে প্রবেশ করা নিষিদ্ধ।

কি কি দেখবেন

একটি সুন্দর দিন যাপনের জন্য প্রয়োজনীয় যাবতীয় উপকরণ রয়েছে জিন্দাপার্কে। ২৫০ প্রজাতির কয়েক হাজার গাছ এবং বেশ কয়েকটি জলাশয় থাকায় পার্কটির সর্বত্রই প্রকৃতির ছোঁয়া খুঁজে পাওয়া যায়। পার্কের প্রবেশ পথে রয়েছে পদ্মঝিরি, যেখানে দেখা পাবেন বিভিন্ন প্রকার মাছের। সামনে এগোতেই যে জিনিসটি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করবে তা হলো সুবিশাল একটি মাঠ। ঘাসের সবুজ গালিচায় মোড়ানো সমতল এই মাঠটি সত্যিই মনোমুগ্ধকর।



মাঠটি মূলত জিন্দাপার্কের ভেতর অবস্থিত একটি স্কুলের মাঠ। চাইলে একটু ঘুরে স্কুলটির নান্দনিক নির্মাণশৈলীও উপভোগ করতে পারেন। এছাড়া বইপ্রেমীদের জন্য এই পার্কে রয়েছে সুন্দর একটি লাইব্রেরি। পার্কের চারিদিকে খানিকটা ঘোরাঘুরি করলেই জলাশয়ের খোঁজ পেয়ে যাবেন। ভাগ্য ভালো থাকলে এসব জলাশয়ে শাপলা ফুলের দেখাও পেয়ে যেতে পারেন। জলাশয়গুলো ঘুরে দেখার জন্য রয়েছে বোট। আধাঘণ্টার জন্য বোট ভাড়া করতে খরচ পড়বে প্রায় ২০০টাকা। পানির উপর ভাসমান ব্রিজ এবং সাঁকো এই পার্কের অন্যতম আকর্ষণ, যা পারি দিয়ে চলে যেতে পারবেন পানির মাঝে অবস্থিত দ্বীপগুলোয়। প্রকৃতি উপভোগের জন্য পার্কের বিভিন্ন স্থানে রয়েছে বসার যায়গা। চারিদিকে প্রচুর গাছপালা থাকায় এখানে অনেক ধরণের পাখির সমাগম হয়। এসবের পাশাপাশি পার্কটিতে মসজিদ, টংঘর, মাটির তৈরি ঘর এবং স্যুভিনিয়র শপ রয়েছে।

খাবেন কোথায়

জিন্দাপার্কের ভেতরেই রেস্টুরেন্ট রয়েছে। দুপুরের খাবার সেখান থেকেই সেরে নিতে পারবেন। বেশ কয়েকটি সেট মেন্যু পেয়ে যাবেন সেখানে। আপনার পছন্দমত সেট অনুযায়ী মাছ-মাংস, শাক-সবজি, ডাল, ভাত বা পোলাও অর্ডার করতে পারবেন। সেটপ্রতি খরচ পড়বে ২৫০ থেকে৪০০ টাকার কাছাকাছি।

থাকার ব্যবস্থা

সারাদিন ঘোরাঘুরি শেষে রাত্রীযাপনের ব্যবস্থাও রয়েছে জিন্দাপার্কে। রুমভাড়া ৩ থেকে ৪ হাজার টাকার মধ্যে।

পার্কের অন্যান্য তথ্য

পার্কের সময়সূচী  

পার্কটি সপ্তাহে ৭ দিন সকাল ৭টা হতে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

পাকিং ব্যবস্থা  

জিন্দাপার্কে নিজস্ব গাড়ি নিয়ে গেলে তা পার্ক করার সুব্যবস্থা রয়েছে। গাড়ির ধরন অনুসারে পার্কিং খরচ ৫০ থেকে ১০০টাকা।

বুকিং  

জিন্দাপার্কে পিকনিক করতে চাইলে নির্ধারিত দিনের ২-৩ দিন পূর্বে পার্ক কর্তৃপক্ষকে জানানোর মাধ্যমে বুকিং করে রাখতে হবে। আপনাদের সুবিধার্থে নিচে পার্কটির ফোন নম্বর এবং ওয়েবসাইটের লিংক দেওয়া হলো –

ফোনঃ০১৭১৬২৬০৯০৮, ০১৭১৫০২৫০৮৩, ০১৭২১২৬৬৬১০

 


শেয়ার করুন সবার সাথে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!